সাতকানিয়ায় বিএনপি প্রার্থীর গাড়িবহরে হামলা

CTG-NEW-1সিটিএন ডেস্ক:

সাতকানিয়া বিএনপির প্রার্থী রফিকুল আলমের গণসংযোগ চলাকালে হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ করেছে দলটি। সোমবার বেলা সাড়ে ৩টা দিকে উপজেলা সদরে প্রার্থী রফিকুল আলমের গাড়িবহরে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে বিএনপির অভিযোগ।
হামলার জন্য সরকারদলীয় প্রার্থী মো. জোবায়েরের কর্মী-সমর্থকদের দায়ী করেছেন ঘটনাস্থলে গণসংযোগে থাকা চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন। তিনি দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বেলা তিনটার দিকে ধানের শীষ প্রতীকের সমর্থনে মেয়র প্রার্থী রফিকুল আলমের উপস্থিতিতে উপজেলা সদরে গণসংযোগ অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে পথসভা শেষ করে পাশের এলাকায় যাওয়ার পথে স্বেচ্ছাসেবক লীগের উপজেলা সভাপতি সাইফুল আলম সুমন এবং তার সহযোগী আবু সালেহ ও জহির রহমানের নেতৃত্বে গাড়িবহরে লাঠিসোটা ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে শতাধিক দুর্বৃত্ত হামলা চালায়। এ সময় তারা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি করে।
বিএনপির এ নেতা অভিযোগ করেন, ‘আমাদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য ঘটনাস্থলে আগে থেকে পুলিশ থাকলেও তারা হামলার সময় নীরব ছিলেন। সন্ত্রাসীরা বিএনপি প্রার্থী রফিকুল আলমের গাড়ি এবং অন্য দু’টি পিকআপ ভাঙচুর করেছে।’
হামলায় উপজেলা মহিলা দলের সভানেত্রী জান্নাতুল নঈম রিকু, যুবদল নেতা জাকারিয়া, মহিলা দলের মুন্নি আক্তার এবং প্রার্থী রফিকুল আলমের গাড়ি চালকসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। এই চারজনকে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান বিএনপি নেতা শেখ মহিউদ্দিন।
এ ব্যাপারে স্বেচ্ছাসেবক লীগের দক্ষিণ জেলা সভাপতি ও দলের মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ জোবায়ের দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘আমি উপজেলা সদর থেকে দূরে গণসংযোগে আছি। বিএনপি প্রার্থীর ওপর কোনো ধরনের হামলার খবর আমি শুনেনি। আর আমার লোকজন কারো ওপর হামলা করবে না। তারপরও আমি আমার অফিসে গিয়ে খোঁজখবর নেব।’
সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ উল্লাহ দ্য রিপোর্টকে বলেন, কোনো হামলার ব্যাপারে কেউ আমাকে অভিযোগ করেনি। অভিযোগ না করলে আমি কিভাবে জানব।’
এ ব্যাপারে সাতকানিয়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মাহমুদুল হাই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে দ্য রিপোর্টকে বলেন, একই সময়ে উপজেলা সদরে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর মিছিল মুখোমুখী হলে দুই গ্রুপ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় গাড়ি ভাংচুর হয়েছে। কয়েকজন আহত হয়েছে জানতে পেরেছি। তাদের খোঁজখবর নিচ্ছি।’


শেয়ার করুন