ব্রিটেনের দ্বিতীয় নারী প্রধানমন্ত্রীর শপথ বুধবার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, সিটিএন:

ঢাকা: ব্রেক্সিট ভোটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে আসার রায়ের পাশাপাশি যুক্তরাজ্যের রাজনীতিতেও বইছে পরিবর্তনের হাওয়া। বদলে যাচ্ছে কনজারভেটিভ পার্টির নেতা এবং প্রধানমন্ত্রী। আর বদলের এই হাওয়ায় দলের প্রধান হচ্ছেন টেরেসা মে। একই সঙ্গে সরকার প্রধান হিসেবেও দেখা যাবে তাকে।

টেরেসা মে হবেন যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে দ্বিতীয় নারী প্রধানমন্ত্রী। সব ঠিক থাকলে বুধবার (১৩ জুলাই) শপথ নেবেন রক্ষণশীল দলের ৫৯ বছর বয়েসি এ নেতা। বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি।

কনজারভেটিভ দলের ক্ষমতার প্রথম মেয়াদে ক্যামেরন মন্ত্রীসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পান টেরেসা মে। এটা ২০১০ সালের কথা। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে জয়ের পরও একই দপ্তর পান তিনি।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে সরে আসা নিয়ে গত ২৩ জুনের গণভোটে ২ শতাংশেরও কম ভোটে হেরে পদত্যাগের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন। ইইউতে থাকার পক্ষে ছিলেন তিনি। অন্যদিকে ইইউ থেকে বেরিয়ে আসার পক্ষে অবস্থান কনজারভেটিভ দলের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টেরেসা মে। ডেভিড ক্যামেরনের পদত্যাগের ঘোষণায় দলীয় ৬০ শতাংশ এমপি দলনেতা নির্বাচনে তার পক্ষে ভোট দেয়। এতে সরকার প্রধান হিসেবে তার পথ পরিষ্কার হয়ে যায়।

দেশটির ইতিহাসের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচার। সে ১৯৭৯ সালে কথা, যিনি লৌহ মানবি হিসেবেও খ্যাত ছিলেন। দায়িত্ব পালন করেছেন টানা তিন মেয়াদে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত। থ্যাচারও এ দলেরই নেতা এবং প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। মার্গারেট থ্যাচারের ২৬ বছর পর একই দল থেকে প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন টেরেসা মে। ২০১৩ সালে সারা যান ব্রিটেনের ইতিহাসের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচার।

মার্গারেট থেচার

শেয়ার করুন