বৌদ্ধদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব

প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে রামুতে ২দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন

probaronaখালেদ হোসেন টাপু,রামু :

বৌদ্ধদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারনা পূর্ণিমা উপলক্ষে কক্সবাজারের রামুতে দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন স্থানীয় বৌদ্ধ সম্প্রদায়। ২৮ অক্টোবর বুধবার রামু খিজারী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে রামুর মধ্যম মেরংলোয়া বড়ুয়া পাড়া যুব সমাজের আয়োজনে দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানমালায় বরেণ্য বৌদ্ধ মনিষা পন্ডিত সত্যপ্রিয় মহাথেরকে সংবর্ধনা প্রদান ও ফানুস উৎসব অন্যতম। ২৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার বাঁকখালী নদীতে ভাসবে দৃষ্টিনন্দন কল্প জাহাজ। পৃথক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল।

সংবর্ধনা ও ফানুস উৎসব উদযাপন পরিষদের সভাপতি লিমন বড়ুয়া ও সাধারণ সম্পাদক সাজীব বড়ুয়া জানান, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক একুশে পদক প্রাপ্ত ও সম্প্রতি বাংলাদেশ সংঘরাজ ভিক্ষু মহাসভা কর্তৃক উপ-সংঘরাজ উপাধিতে ভুষিত হওয়ায় রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহারের অধ্যক্ষ পন্ডিত সত্যপ্রিয় মহাথেরকে এবারের প্রবারনা পুর্ণিমার ফানুস উৎসবে সংবর্ধিত করা হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন, কক্সবাজার-৩ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে রামু কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মোশতাক আহমদ প্রধান আলোচক, রামু আর্যবংশ ভিক্ষু সংস্থা’র মহা সচিব ভদন্ত প্রিয়রতœ থের ও বাংলাদেশ বুড্ডিস্ট ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক ভদন্ত সুনন্দপ্রিয় থের স্বাগত বক্তা, রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সেলিনা কাজী, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি সুপ্ত ভূষণ বড়ুয়া, রামু থানা অফিসার আনচার্জ মোঃ আবদুল মজিদ, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) সদস্য বিজন বড়ুয়া, ফার্ম পিএনএফ লিঃ ম্যানেজিং ডিরেক্টর পান্নালাল বড়ুয়া, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বাবুল শর্মা, সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) এড. অরূপ বড়ুয়া তপু, রামু বিজয় মেলা উদযাপন পরিষদ-২০১৪ ইংরেজি’র মহাসচিব তানভীর সরওয়ার রানা, কক্সবাজার জেলা যুবলীগের শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক পলক বড়ুয়া আপ্পু, দৈনিক কক্সবাজার বার্তা’র নির্বাহী সম্পাদক দুলাল বড়ুয়া, রামু কেন্দ্রীয় যুব পরিষদের আহ্বায়ক রজত বড়–য়া রিকু বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলেন জানিয়েছেন, সংবর্ধনা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

এছাড়া ওই দিন ভোর ৬টায় বৌদ্ধ বিহারে বুদ্ধ পূঁজাদান, সকাল ৮টায় ধর্মীয় ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সাড়ে ৮টায় অষ্টশীল গ্রহণ, দুপুর দেড়টায় পবিত্র ত্রিপিটক থেকে পাঠ, ২টায় বুদ্ধের অস্থি ও ধাতুর প্রদর্শন, ৩টায় শোভাযাত্রা সহকারে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগদান, সন্ধ্যায় সন্ধ্যা ৬টায় রামু খিজারী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হবে ফানুস উত্তোলন উৎসব। সাড়ে ৬টায় বৌদ্ধ বিহারে হাজার প্রদীপ প্রজ্জ্বলন, ৭টায় অষ্টশীল গ্রহণ ও বিশ্ব শান্তি কামনায় সমবেত প্রার্থনার মাধ্যমে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা শেষ করা হবে বলে জানান মধ্যম মেরংলোয়া বড়ুয়া পাড়া যুব সমাজ নেতৃবৃন্দ।

২৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রামুর বাঁকখালী নদীর দু’পাড়ে হাজার হাজার নর-নারীর সম্মিলনে নদীতে ভাসবে দৃষ্টিনন্দন কল্প জাহাজ। এরই মধ্যে উপজেলার আটটি বৌদ্ধ পল্লীতে বাঁশ, বেত, কাঠ, কাগজ দিয়ে অপূর্ব কারুকাজে তৈরী জাহাজে ঈগল, ময়ূর, বিহারচূড়াসহ বিভিন্ন প্রাণীর প্রতিকৃতি ফুটিয়ে তোলে কল্পজাহাজ নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। ছয়-সাতটি নৌকাকে এক করে সেই নৌকার ভেলায় বসানো হবে এক একটি কল্প জাহাজ। সেই জাহাজেই চলবে শিশু-কিশোর ও যুবকদের বাঁধভাঙা আনন্দ। তাঁরা নানা বাদ্য বাজিয়ে সেখানে নাচবে, গাইবে ও মেতে ওঠেছে অন্যরকম উচ্ছ্বাসে। সে সাথে কল্প জাহাজে চলবে বুদ্ধ কীর্তন -‘বুদ্ধ, ধর্ম সংঘের নাম সবাই বলো রে’ বুদ্ধের মতো এমন দয়াল আর নাইরে”সহ নানা বৌদ্ধ কীর্তন।

রামু কেন্দ্রীয় জাহাজ ভাসা উৎসব উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি সাংবাদিক অর্পণ বড়ুয়া ও সাধারণ সম্পাদক মাষ্টার সুমথ বড়ুয়া জানান, বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাঁকখালী নদীতে ঐতিহ্যবাহী জাহাজ ভাসানো উৎসবে এ প্রাণের মেলা বসবে। বৌদ্ধ ভিক্ষুদের ত্রি-পিটক পাঠ শেষে দুপুর আড়াইটার দিকে বাংলাদেশ সংঘরাজ ভিক্ষু মহাসভার প্রাক্তন সভাপতি, উপ-সংঘরাজ, একুশে পদকপ্রাপ্ত পন্ডিত সত্যপ্রিয় মহাথের’র আশীর্বাদ প্রদানের মধ্য দিয়ে জাহাজ ভাসানো উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নদীতে চলবে এ আনন্দায়োজন।

তাঁরা জানান, জাহাজ ভাসানোকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ তিনমাস ব্যাপী রামুর প্রায় বিশটি বৌদ্ধ পল্লীতে আনন্দায়োজনের পর মহাউৎসাহ উদ্দীপনার মাঝে এ উৎসব সম্পন্ন করা হবে। পূর্ব রাজারকুল, হাজারীকুল, হাইটুপী রাখাইন পাড়া, হাইটুপী বড়ুয়া পাড়া, দ্বীপ-শ্রীকুল, জাদিপাড়া, হাজারীকুল ও মেরংলোয়া গ্রাম থেকে মোট আটটি কল্পজাহাজ নদীতে ভাসানো হবে। শুধুমাত্র বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সাথে অন্যান্য সম্প্রদায়ের লোকজনও এ আনন্দে মেতে ওঠবে। এ অনুষ্ঠান পরিণত হবে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মহামিলন মেলায়।

দুইশত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী এ জাহাজ ভাসানো উৎসব শুধুমাত্র ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে গুরুত্বপূর্ণ নয়, যুগ যুগ ধরে হাজার হাজার শিশু-কিশোর ও আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার মাঝে নির্মল আনন্দ ও সৌহার্দ্য সম্প্রীতির বন্ধন সুদৃঢ় করে আসছে এ উৎসব। সারা দেশের মধ্যে রামুতেই এ উৎসবের শুভ সুচনা করা হয়। কয়েক বছর ধরে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত, চৌফলদন্ডিসহ চকরিয়ার মাতামুহুরী নদীতে জাহাজ ভাসানো উৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

জাহাজ ভাসা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি- সম্পাদক আশা করছেন, কক্সবাজার সদর, মহেশখালী, চকরিয়া, উখিয়া, লামা, আলীকদম, নাইক্ষ্যংছড়ি ও সূদুর ঢাকার লোকজনসহ দেশী-বিদেশী পর্যটকরাও উৎসবে যোগ দেবেন। মুসলিম, হিন্দু, খ্রিষ্টান ও বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অংশ গ্রহণে এ বছরও এটি সর্বজনীন উৎসবে পরিণত হবে।
বাংলাদেশ সংঘরাজ ভিক্ষু মহাসভার প্রাক্তন সভাপতি, রামু সীমা বিহারের অধ্যক্ষ, মান্যবর উপসংঘরাজ, পন্ডিত সত্যপ্রিয় মহাথের জানান, আজ হতে প্রায় দুইশ বছর আগে মিয়ানমারের মুরহন ঘা নামক স্থানে একটি নদীতে মংরাজ ম্রাজংব্রান প্রথম এ উৎসবের আয়োজন করেন। প্রবারণা পূর্ণিমায় একসাথে মিলিত হবার জন্য এ আয়োজন চলতো। সেখান থেকে বাংলাদেশের রামুতে এ উৎসবের প্রচলন। প্রায় শত বছর ধরে, রামুতে মহাসমারোহে এ উৎসব হয়ে আসছে।

জাহাজ ভাসা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। প্রধান আলোচক থাকবেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব জুলফিকার আলি মাণিক। বিশেষ অতিথি থাকবেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন, পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ, রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বেগম সেলিনা কাজী, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ¬ব বড়ুয়া, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি সুপ্ত ভূষণ বড়ুয়া, রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আব্দুল মজিদ, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব প্রবীর বড়ুয়া, বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমের চট্টগ্রাম ব্যুরো এডিটর তপন চক্রবর্তী, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বাবুল শর্মা, দৈনিক কক্সবাজার বার্তা ও নিউজকক্স২৪.কম এর সম্পাদক দুলাল বড়ুয়া, রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তরুন বড়ুয়া, রামু কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ যুব পরিষদের আহ্বায়ক রজত বড়ুয়া রিকু। অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন ঐতিহাসিক রাংকুট বনাশ্রম বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ কে.শ্রী জ্যোতিসেন থের।

এবারের জাহাজ ভাসা অনুষ্ঠান দেশের বহুল প্রচারির স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তরে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। ইতোমধ্যে চ্যানেলটির নিউজ ডিরেক্টর সায়েদ ইশতিয়াক রেজা’র সাথে চুড়ান্ত আলাপ হয়েছে।


শেয়ার করুন