পেকুয়ায় মামলার ভয় দেখিয়ে ১২লাখ টাকা আত্মসাত

download (1)পেকুয়া প্রতিনিধি:

পেকুয়ায় ৫জন চিংড়ি চাষীর ১২লাখ টাকা আত্মসাত করেছে প্রতারক। মামলাবাজ ওই ব্যক্তি ব্যবসার অজুহাত দেখিয়ে ওই পাঁচজন ক্ষুদ্র মৎস্য চাষীর কাছ থেকে এসব টাকা আত্মসাত করেছেন। এদিকে পাওনা টাকা অনাদায়ী থাকায় আত্মসাতকারীর বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রতারনার শিকার ওই মৎস্য চাষীরা পেকুয়ার ইউএনও, কক্সবাজারের জেলা পুলিশ সুপার ও উজানটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত পৃথক অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, গত ২০১৪সালে উজানটিয়া ইউনিয়নের সুতাচোরা এলাকায় যৌথ মালিকানায় স্থানীয় মৎস্য চাষীরা মাছ চাষ করে। ওই সময় চিংড়ি চাষী গোদারপাড় এলাকার মৃত.শাহ আলমের পুত্র নেছার উদ্দিন, সিরাজ মিয়ার পুত্র আব্দুল হাকিম, শের আলীর পুত্র জাহাঙ্গীর আলম, মৃত.হাজ্বী কালা মিয়ার পুত্র নুরুল আলম, হাজ্বী ছৈয়দ আলমের পুত্র আজগর আলী ও আব্দু ছত্তারের পুত্র বোরহান উদ্দিনসহ একটি মৎস্যঘের নিয়ে মাছ চাষ করে। চলতি ২০১৫সালেও একইভাবে একই ব্যক্তিরা একই মৎস্য প্রজেক্টে মাছ চাষ করে।

জানাগেছে, ২০১৪সালে উল্লেখিত মৎস্য চাষীরা অপর অংশীদার নেছার উদ্দিনের কাছ থেকে ৭৩হাজার ৫শত টাকা পাওনা ছিল। চলতি বছর তারা ১১লক্ষ ৫০হাজার টাকা পাওনা রয়েছে নেছার উদ্দিনের কাছ থেকে। এদিকে পাওনা আদায়ের জন্য ওই ৫জন ক্ষুদ্র মৎস্য চাষী নেছার উদ্দিনের কাছে যান। তিনি টাকা পরিশোধ না করে উল্টো তাদেরকে গালমন্দসহ মামলার হুমকি দেন বলে অভিযোগ করেছেন তার অপর ৫জন অংশীদাররা।

অপরদিকে নেছার উদ্দিনের কাছ থেকে আত্মসাতকৃত টাকা উদ্ধারের জন্য উল্লেখিত ব্যক্তিরা গত ১৮অক্টোবর কক্সবাজারের পুলিশ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। একইভাবে গত ১৪অক্টোবর একই ব্যক্তিরা নেছার উদ্দিনের বিরুদ্ধে উজানটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান বরাবর ও একইদিন পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এব্যাপারে উজানটিয়া ইউপির সচিব মহসীন অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা স্বীকার করেছেন।


শেয়ার করুন