ঈদবাজার

পরীস্থানে রুচিশীল শাড়ি ও থ্রিপিছের বর্ণিল রাজত্ব

13487423_1168448513185573_1388922899_nএম.এ আজিজ রাসেল :

যুগের আবর্তে ফ্যাশনে এসেছে আমূল পরিবর্তন। দিন দিন পাল্টাচ্ছে মানুষের চাহিদা। সবার চোখ এখন নতুনত্বের প্রতি। তাই ক্রেতাদের চাহিদা পূরণ করতে ব্যবসায়ীরাও নিত্য নতুন ডিজাইনের পোশাক কালেকশন করছে। এবার ঈদকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে প্রসিদ্ধ বিপনী বিতান গুলোতে মানুষের ভীড় বেড়েছে। ভীড়ের মিছিলে ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের সংখ্যা বেশি। সাথে রয়েছে ছোট্ট সোনামনিরাও।
ফ্যাশন সচেতন মানুষের কথা মাথায় রেখে প্রতিবারের ন্যায় এবারও শহরের ফিরোজা শপিং কমপ্লেক্সের অভিজাত বিপনী বিতান পরীস্থান রুচিশীল পোশাকের পসরা সাজিয়েছে। ডিজাইন, কালার ও নতুনত্বের দিক দিয়ে প্রতিষ্ঠানটিতে শাড়ি ও থ্রি-পিছের বর্ণিল রাজত্ব দেখা গেছে।
গতকাল সন্ধ্যায় পরীস্থানে গিয়ে দেখা যায়, আলো ঝলমল স্নিগ্ধ পরিবেশ। পরিপাটি করে সাজানো হয়েছে পুরো দোকান। এখানকার ডেকোরেশন নজরকাড়া । এতে তোলা হয়েছে নিত্য নতুন ডিজাইনের শাড়ি ও সেলোয়ার কামিজ। যা দেখলে লুপে নিতে ইচ্ছে করবে নিমিষেই। এখানে আসা ক্রেতারা বুঝতেই পারছেনা কোনটা ছেড়ে কোনটা কিনবে। দিশাহীন হয়ে ঈদের প্রতিটি দিনের জন্য ডিজাইন এবং কারুকাজ দেখে চোখ ধাধানো শাড়ি ও থ্রি-পিছ কিনছে তরুণীরা।
এবার ঈদ কালেকশনে শাড়ির মধ্যে রয়েছে এলপিজি, পারপেল পোটালা, ক্রিমার মিউজিয়াম, রাশি চিবাস, রোঙ্গানী বিয়াং, জয়পুরী, কালিশতা, বিনয় ফৎঙ্গান, প্যাকেজ কাতান, চৌষা জোট, জয়-বিজয়, টাঙ্গাইল, তাত ও সুতি প্রিন্ট।

সেলোয়ার কামিজ আইটেম এর মধ্যে আরফিটি, দিল্লি বুটিকস, বিনয়, বিপুল, রাঘা, রিভা, সিলকিনা, রামা, কিমুরা, রূপ সিঙ্গার, মল-২৪, শহিদ ফ্যাশন, স্টাইল ফেয়ার, ইসতিয়াক ও গুলমহর। এসব শাড়ি ও সেলোয়ার কামিজ উচ্চ বিত্ত থেকে শুরু করে নিম্ন বিত্তরা পছন্দমতো নিতে পারেন। ঈদ কালেকশনের এসব পোশাকে ব্যবহার করা হয়েছে ফিরোজা, মেজেন্ডা, লাল, নীল, বাদামী, হলুদ, কালো, সাদাসহ আকষর্ণীয় রঙ। ডিজাইনের ক্ষেত্রে কাপড়ের উপর নানা ভাবে কারুকাজ করে এমব্রডারি, বুটিকস জরি, পুতি, বক্রম, লেইস ও দামি পাথর ব্যবহার করা হয়েছে।
এখানে শপিং করতে আসা কক্সবাজার সরকারি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী মেহরিন, নাবিলা ও জুরিয়া জানান, প্রতি বছরে ঈদে পরীস্থান থেকে কাঙ্খিত পোশাক কিনি আমরা। কারণ এখানকার ডিজাইন, কালার ও গুণগত মানের প্রতি আস্থা রয়েছে। তাছাড়া এখানে কোন সময় প্রতারিত হতে হয়নি। জানা যায়, প্রতিষ্ঠার পর থেকে পরীস্থান সুনামের সাথে ব্যবসা করে আসছে। পোশাক জগতে ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। ক্রেতাদের আস্থা ও ভালবাসায় তাদের মূল পুঁজি বলে জানান পরীস্থানের কর্ণধার খোরশেদ আলম। সদা হাসোজ্জ্বল এই ব্যক্তি জানান, উৎসবে ব্যতিক্রম পরীস্থান। কারণ যেকোন উৎসবে আমরা ভিন্ন ও নব ডিজাইনের পোশাক কালেকশন করি। ক্রেতাদের চাহিদা পূরণে যেকোন ত্যাগ গ্রহণেও প্রস্তুত তিনি।


শেয়ার করুন