‘পরাজয় বুঝতে পেরে ঐক্যফ্রন্ট পেশিশক্তি দেখানো শুরু করেছে’

ড. কামাল হোসেনের খারাপ আচরণের জন্য নিন্দা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এত বড় মাপের মানুষ, এত বড় আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একজন মানুষ, তার মুখে এ রকম নোংরা ভাষা মানায় না।

তিনি বলেন, আপনারা এ রকম সন্ত্রাসী আচরণ বন্ধ করুন। মস্তানি ও সন্ত্রাসী আচরণ দেশের মানুষ পছন্দ করে না।

বুধবার (২৬ ডিসেম্বর) বিকালে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে তার বাসভবন সুধাসদন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে চাঁদপুর, কুষ্টিয়া ও নওগাঁয় নির্বাচনী জনসভায় বক্তব্য দেয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এ সময় প্রথমে তিনি কুষ্টিয়া জনসভায় কথা বলেন। কুষ্টিয়ার দলীয় প্রার্থীদের তিনি পরিচয় করিয়ে দেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভোট পাবে না জেনেই সহিংস পরিস্থিতি তৈরি করছে বিএনপি। তাছাড়া তিনি নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে ড. কামাল হোসেনের খারাপ আচরণের জন্য নিন্দা জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, তারা (ঐক্যফ্রন্ট) জানে যে, তারা নির্বাচনে জয়লাভ করতে পারবে না। কারণ, বাংলাদেশের মানুষ কখনও সন্ত্রাসী, জঙ্গি, দুর্নীতিবাজ, অর্থ পাচারকারী ও এতিমের টাকা আত্মসাৎকারীদের ভোট দেবে না। এ কারণে তারা পেশিশক্তি দেখানো শুরু করেছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ দেশে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ চায়, যেখানে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

জনগণ তাদের ভোট ও দেশের মালিক। জনগণ ঠিক করবে তারা আগামী নির্বাচনে কেমন সরকার চায়, যোগ করেন তিনি।

আওয়ামী লীগ প্রধান সুনিশ্চিতভাবে বলেন, তার দলের নেতাকর্মীরা একসাথে থাকলে কেউ তাদের আগামী নির্বাচনে পরাজিত করতে পারবে না।

শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে হবে। বিরোধীদলগুলো ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। তারা যাতে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারে সে জন্য শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে, জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ঐক্যফ্রন্ট হয়তো সন্ত্রাস করতে পারে, এটা তাদের চারিত্র। কিন্তু আওয়ামী লীগ কখনও তা করবে না।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট ২০০১ সালে যা করেছিল তা করতে চায়। তারা ২০০১ সালের মতো জনগণকে অত্যাচার এবং ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে চায়।

তিনি দাবি করেন, ঐক্যফ্রন্টের কর্মীরা এখন পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামী লীগের পাঁচ নেতা-কর্মীকে হত্যা ও ৪০১ জনকে আহত করেছে। বিএনপি-জামায়াত জোট ৫১ জেলার ৮৮ আসনে হামলা, ভাংচুর, বোমা হামলা ও আগুন সন্ত্রাস চালিয়েছে। তাদের চরিত্র যা তারা সেটাই করছে।

গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতার জন্য নির্বাচনে ভোট দেয়ার সুযোগ কাজে লাগাতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দয়া করে আসন্ন নির্বাচনে নিজেদের ভোট দিন এবং পছন্দের প্রার্থীদের বিজয়ী করুন।


শেয়ার করুন