ফারুক হত্যা : টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নিহত

সিটিএন ডেস্ক 

টেকনাফে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার হ্নীলার জাদিমুরায় এই ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো- হ্নীলা নয়াপাড়া রেজিস্টার ক্যাম্পের বাসিন্দা জমির আহমদের পুত্র মোঃ আব্দুল করিম (২৪) ও একই ক্যাম্পের বাসিন্দা ছৈয়দ হোসেনের পুত্র নেছার আহাম্মদ প্রকাশ নেছার ডাকাত (২৭)। এই ঘটনায় পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছে।
সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ জানান, জামিদুড়া চাইল্ড ফেন্ডলী স্পেস অফিসের পিছনে পাহাড়ের উপরে পানির ট্যাংকির নিচে রোহিঙ্গারা সন্ত্রাসীরা অবস্থান করার খবর পেয়ে ওসির নেতৃত্বে সেখানে অভিযানে যায় পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোঁড়ে। এক পর্যায়ে লোকজন এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যেতে থাকে। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় দুইজন সন্ত্রাসী গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে রয়েছে। তাদেরকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থায় আশঙ্কাজনক হওয়ায় সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতলে প্রেরণ। কক্সবাজার সদর হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি আরো জানান, গোলাগুলিতে এএসআই কাজী সাইফ উদ্দিন, কনস্টেবল নাবিল ও কনস্টেবল রবিউল ইসলাম আহত হয়। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয় দুইটি এলজি ও সাত রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।।

ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, নিহতরা দুইজনই দাগী সন্ত্রাসী। তারা হ্নীলার যুবলীগ নেতা ওমর ফারুক হত্যাসহ পাঁচটি মামলার পলাতক আসামী।

 


শেয়ার করুন