২ বছর পর পৃথিবীতে ফিরলো রহস্যময় মার্কিন ড্রোন

174429_1প্রযুক্তি ডেস্ক
প্রায় দুই বছর মহাকাশে কাটানোর পর২ বছর পর পৃথিবীতে ফিরলো রহস্যময় মার্কিন ড্রোন যুক্তরাষ্ট্রের মিলিটারি ড্রোন এক্স-৩৭ বি পৃথিবীতে ফিরেছে। এ ড্রোন বা চালকবিহীন যানটির রহস্যময় মিশন নিয়ে নানা জল্পনা–কল্পনা চলছে।

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসার পুরোনো যুগের মহাকাশযানের একটি ছোট সংস্করণের মতো দেখতে ড্রোনটি। পৃথিবীর চারপাশে ৭১৮ দিন প্রদক্ষিণ শেষে গত রবিবার এটি ফ্লোরিডার মাটি স্পর্শ করে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবাহিনী।

ড্রোনটি ৩০ ফুট লম্বা। এর পাখার দৈর্ঘ্য ১৫ ফুট। রকেটে করে পৃথিবীর কক্ষপথে এটি স্থাপন করা হয়। ২০১০ সালে এটি প্রথমবার ওড়ানোর পর থেকে এর আসল উদ্দেশ্য নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়।

অনেকে মনে করেন, এটি মহাকাশ থেকে বোমা ছোড়ার জন্য সেখানে পাঠানো হয়েছে, যাতে মুহূর্তের নির্দেশে পৃথিবীর কোনো বস্তুর ওপর আঘাত হানতে পারে। অনেকে আবার একে ‘কিলার স্যাটেলাইট’ বলেন, যা শত্রুর কৃত্রিম উপগ্রহকে ধংস করতে বা ক্ষতি করতে পারে। কেউ ভাবেন, এটা গোয়েন্দা প্লেন, যাতে শত্রু এলাকার ওপর নজরদারি করা যায়।

বিশেষজ্ঞরা অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রের এক্স ৩৭-বিকে সত্যিকার কোনো অস্ত্র বা গোয়েন্দা প্লেনের প্রটোটাইপ বলে সন্দেহ করেন। মহাকাশে স্থায়ী উন্নয়ন বিষয় নিয়ে কাজ করা সংস্থা সিকিউর ওয়ার্ল্ড ফাউন্ডেশনের বিশেষজ্ঞ ভিক্টোরিয়া স্যামসন বলেন, পিকআপ ট্রাকের আকারের এক্স ৩৭ দেখে মনে হয় না এর পৃষ্টে কোনো কার্যকর অস্ত্র বসানো যাবে। এর শক্তির উৎস কেবল সৌরপ্যানেল হওয়ায় একটি মহাকাশে খুব কার্যকর কৃত্রিম উপগ্রহ বলে মনে হয় না।

২০১৫ সালে অ্যামেচার স্যাটেলাইট ট্র্যাকারস নেটওয়ার্ক উৎক্ষেপনের ছয় দিন পর ড্রোনটি চতুর্থবারের মতো আকাশে ওড়ানো হয়। ২০১৫ সালে কক্ষপথ পরিবর্তন করে এটি কয়েক মাসের জন্য হারিয়ে যায়। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারির পর এটি আবার খুঁজে পাওয়া যায়। এ ড্রোনটিকে সম্ভাব্য অস্ত্রের চেয়ে পরীক্ষামূলক ড্রোন হিসেবেই ভাবছেন অনেক বিশেষজ্ঞ। মহাকাশে সেনসর ও নানা যন্ত্রপাতি কীভাবে কাজ করে, সেটি পরীক্ষার জন্যই ড্রোনটি কাজে লাগানো হচ্ছে বলে তাদের ধারণা।


শেয়ার করুন


একই রকম আরও কিছু পোস্ট