স্বাস্থ্য বিষয়ক এ্যাডভোকেসি সভায় সম্পন্ন

13149966_1139334946096930_2046495707_nএম.এ আজিজ রাসেল :
জেলা প্রশাসক মোঃ আলী হোসেন বলেছেন, গণমানুষের স্বাস্থ্য উন্নয়নে কক্সবাজার এখনো পিছিয়ে রয়েছে। স্বাস্থ্য সূচকের পরিধি বৃদ্ধির লক্ষ্যে গ্রামে-গঞ্জে স্বাস্থ্য কর্মীদের নিরলস ভূমিকা আবশ্যক। সেবার মানসিকতা নিয়ে মানুষের দোড়গোড়ায় স্বাস্থ্য সেবা পৌছে দিতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারী প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি এনজিও কর্মকর্তা-কর্মচারিদের আরো আন্তরিক হতে হবে। গতকাল ১০ মে মঙ্গলবার বিকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে পরিবার পরিকল্পনা, মা-শিশু-কৈশোরকালীন স্বাস্থ্য সেবা ও প্রচার সপ্তাহ ১৪-১৯ মে উপলক্ষে আইইএম ইউনিটের উদ্যোগে ও ইউএনএফপিও এর অর্থায়নে আয়োজিত এ্যাডভোকেসি সভা ও প্রেস বিফ্রিংয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন। জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ পরিচালক আমির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন প্রতিনিধি ডাঃ মোঃ মহিউদ্দিন আলমগীর ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক খাজা আহমদ মিয়াজী। বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহেদ সরওয়ার সোহেল, সাংবাদিক সওয়ার আজম মানিক, ইউএনএফপিএ এর প্রতিনিধি সুমন বড়–য়া, সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নাজমুল হাসান, আরটিএমআই এর প্রতিনিধি নাসরিন আকতার মনিকা, সূর্যের হাসি ক্লিনিকের সমন্বয়কারী মোঃ ইছা ও এফপিএডি কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল। সভায় বক্তারা বলেন, প্রসবের অব্যাবহিত পরেই পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণের বিষয়ে প্রয়োজনীয়তা উলদ্ধি না করা অথবা কোন পদ্ধতি উপযুক্ত তা সঠিক না জানার কারণে মায়েরা খুব অল্প সময়ে পুনরায় গর্ভবতী হয়ে পড়ে। তাই প্রসবের পরে পরিবার পরিকল্পনার আওতায় আনা গেলে অনিচ্ছাকৃত ও পুনরায় গর্ভধারণ এড়ানো সম্ভব। এতে মায়েদের স্বাস্থ্যও ঠিক থাকবে। তাই এ লক্ষে আগামী ১৪ মে থেকে ১৯ মে পর্যন্ত পরিবার পরিকল্পনা, মা-শিশু-কৈশোরকালীন স্বাস্থ্য সেবা ও প্রচার সপ্তাহ পালন করা হবে।


শেয়ার করুন