জালালাবাদে ভুমিদস্যু ও খতিয়ান জালিয়াতচক্র: বাড়ছে সাংঘাত

আতিকুর রহমান মানিক, কক্সবাজার:

কক্সবাজার সদরের জালালাবাদে ভুমিদস্যু ও খতিয়ান জালিয়াতচক্র মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে । এদের হাতে প্রতিনিয়ত হয়রানি ও প্রতারনার শিকার হচেছ নীরিহ জনগন । ভুমি অফিসকেন্দ্রীক একটি সিন্ডিকেট এদেরকে নিয়ন্ত্রণ করে আসছে বলে জানা গেছে। অভিনব কৌশলে একের পর এক জমি দখল ও চাঁদাবাজী করলেও এরা রয়ে গেছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। জানা যায়, বিরোধপূর্ণ বিভিন্ন জায়গা জমি ও অপেক্ষাকৃত দূর্বল পক্ষকে টার্গেট করে প্রথমে মাঠে নামে এরা । তারপর বিভিন্ন তালবাহনা তুলে টার্গেটকৃত জমিতে প্রথমে ঘেরা-বেড়া দেয়া অথবা স্থাপনা নির্মানের চেষ্টা করে । তখন জমির মালিক বাঁধা দিলে তাকে বৈঠকে বসতে বলে ও বিচারে বসার আগে বিচারের সিদ্ধান্ত মেনে নেবে মর্মে বিভিন্ন কলা-কৌশলে খালি ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর আদায় করে রাখে। এরপর শুরু হয় বিচারের নামে প্রহসন ও সময়ক্ষেপণ । এখানে উল্লেখ্য যে, বিচারকের নামে যারা থাকে তারাও ঐ প্রতারক চক্রের লোকজন । প্রতিবার বিচার বৈঠকের তারিখ দিয়েও বিচারে বসেনা তারা। এভাবে সময় ক্ষেপনের ফাঁকে বিচারের আগে নেয়া অলিখিত ষ্ট্যাম্প পুরন করে নেয় । এরপর উক্ত ষ্ট্যাম্পকে পুঁজি করে সরাসরি মাঠে নামে তারা। একাধিক সন্ত্রাসী গ্র“প নিয়ে প্রকাশ্যেই দিন দুপুরে দখল করে নিয়ে স্থাপনা নির্মান করা হয়। এভাবেই সম্পন্নৃ হয় সফল দখল প্রক্রিয়া। উক্ত জমি এর পর বিক্রি করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয় । বিভিন্ন স্থানে এভাবে অন্তত ডজন খানেক জমি দখলে নিয়েছে এরা । স্থানীয় খামার পাড়া নিবাসী রামু ইউনিয়ন ভুমি অফিসের এক পিয়ন এদেরকে যাবতিয় ইন্ধন দিচ্ছে বলে জানা গেছে । বিরোধপূর্ণ অনেক জমিতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানে না এরা । স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে দখলে নেয় আদালতে বিচারাধীন জমি। অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক মনজুরুল ইসলাম জানান, কক্সবাজার যুগ্ম জেলা জজ (প্রথম) আদালতে বিচারাধীন পূর্ব ফরাজী পাড়া প্রধান সড়ক সংলগ্ন মূল্যবান জমি দখলে নিতে সম্প্রতি হামলা করে উক্ত ভুমিদস্যু গ্র“প। আদালতের নিষেধাজ্ঞাভূক্ত জমি থেকে মূল্যবান গাছপালা কেটে নেয়ার পরে এলাকা বাসীর প্রতিরোধে পালিয়ে যায় তারা। ‘‘বড় হুজুর“ নামে পরিচিত মিয়াজী পাড়ার বহুল বিতর্কিত সাবেক এক মেম্বার ও এলাকার কুখ্যাত ‎মানবপাচারকারী জাফর আলম বিল্লু উক্ত ভূমিদস্যু সিন্ডিকেটের নেতৃত্ব দিচ্ছে বলে জানা গেছে। বিভিন্ন অপকর্মের ফলে গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উক্ত বড় হুজুর বিপুল ভোটের ব্যাবধানে পরাজিত হয়। এদের কবলে পড়ে ইতিপূর্বে অনেকের মুল্যবান জমি বেহাত হয়ে গিয়েছে ও এ নিয়ে এলাকায় দাংগা-হাঙ্গামা বেড়ে যাচ্ছে। এই ভুমি দস্যু চক্রের বিরোদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়ার দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী। ‎


শেয়ার করুন


একই রকম আরও কিছু পোস্ট