গর্জনিয়ায় প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স’র মৃত্যুদাবীর চেক হস্তান্তর

unnamed
হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী, নাইক্ষ্যংছড়ি:
রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নে মরহুম তাজুল ইসলাম চৌধুরীর মৃত্যুদাবীর চেক হস্তান্তর করেছে প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। শনিবার (১৭ জানুয়ারি) বিকাল ৪টায় গর্জনিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে মরহুমের পরিবারে সদস্যদের মাঝে মৃত্যুদাবীর চেক হস্তান্তর করেন উক্ত কোম্পানির কর্মকর্তারা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ওই কোম্পানির কক্সবাজার জোন ইনচার্জ শাহাদাত হোছাইন ছিদ্দিকি বলেন, অসহায় মানুষের কান্ডারি হয়ে সমস্ত এলাকায় কাজ করছে প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। এ কোম্পানি দেশের বীমা গ্রাহকদের পরিবারকে আর্থিকভাবে নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে। প্রাইমে বীমা করলে অর্থনৈতিক ভাবে সাবলম্বি হওয়া যায়।
তিনি বলেন, আমাদের দেশে বিধবা ও এতিমদের দায়-দায়িত্ব সরকার নেয় না। যিনি উপার্জন করে পরিবার চালাতেন, তার মৃত্যুর পর অন্য সদস্যরা বিপাকে পড়ে যায়। আর যে মৃত্যুবরণ করেছে তার যদি একটি বীমা প্রাইম ইসলামী লাইফ ইন্সুরেন্স কোম্পানিতে থাকে তাহলে ঐ পরিবারের অন্য সব কর্মক্ষম ব্যক্তিদের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরী হচ্ছে। দেশে অনেক কোম্পানি সাধারণ মানুষের সাথে পতারনা করে পালিয়ে গেছে। কিন্তু আমরা দীর্ঘ সময় ধরে বিভিন্ন এলাকায় মৃত্যুদাবীর চেক হস্তান্তর করে যাচ্ছি জনগণ ও দেশের কল্যানে। তাই আপনারাও দেশের উন্নয়নে কাজ করুন।
কোম্পানির দায়িত্ব প্রাপ্ত জেলার ফিল্ড কো অর্ডিনেটর হাফেজ মোতাহেরুল হকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, গর্জনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান তৈয়ব উল্লাহ চৌধুরী, প্রাইমের এসভিপি হাফেজ মুহাম্মদ উল্লাহ, জেলার সিনিয়র সহ-সভাপতি হাফেজ মাহমুদুল হক, বিসি মাষ্টার নুরুল বশর, আওয়ামী লীগ নেতা হাবিব উল্লাহ চৌধুরী প্রমূখ। অনুষ্ঠানে গর্জনিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক আসহাব উদ্দিন, প্রাইমের ইউনিট ম্যানেজার মাওলানা আবদুর রহিম, গর্জনিয়া উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী পরিষদের সভাপতি মুহিবুল্লাহ চৌধুরী জিল্লু, কোডেকের এলএফ নাজিম উদ্দিন, মাওলানা নূর আহমদ, নাইক্ষ্যংছড়ি প্রেস ক্লাবের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক হাফিজুল ইসলাম চৌধুরীসহ স্থানীয় সচেতন মহল উপস্থিত ছিলেন।
আলোচনা সভার পর ইউনিয়রে বোমাংখিল গ্রামের বাসিন্দা মরহুম তাজুল ইসলাম চৌধুরীর আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পাঠের পর ৪০ হাজার ৮৫৫ টাকার মৃত্যুদাবীর চেক অতিথিবৃন্দ পিতা হাবিব উল্লাহ চৌধুরী ও মাতা আয়েশা খানম চৌধুরীর হাতে তুলে দেন।


শেয়ার করুন


একই রকম আরও কিছু পোস্ট